রসে বশে করুন উড়িষ্যা ভ্রমন

0
380

উড়িয়া খাবারের বিশেষত্ব হল খুবই কম তেলএ রান্না করা সহজপাচ্য, স্বাস্থ্যসম্মত এবং সুস্বাদু খাবার। জগন্নাথ দেব কে নিবেদন করা ৫৬ ভোগ রান্নার থেকেই আমরা বুঝতে পারি উড়িষ্যার খাবারের বৈচিত্র্য কি বিশাল। আসুন, আমরা এবার আলোচনা করি উড়িষ্যা এ আবিষ্কৃত কিছু  বিখ্যাত মিষ্টি সম্পর্কে।

রসগোল্লা

Rasagulla

উড়িষ্যার প্রাচীন পরম্পরা অনুযায়ী রথযাত্রার দিন রসগোল্লা দেবী লক্ষ্মীকে নিবেদন করা হয়ে থাকে। যদি আপনি সব থেকে ভাল রসগোল্লা খেতে চান, তাহলে আপনাকে যেতে হবে ভুবনেশ্বর আর কটক এর মধ্যে ৫ নম্বর জাতীও সড়ক এ অবস্থিত পাহালা গ্রাম এ। উড়িষ্যা তে রসগোল্লা এত ই জনপ্রিয় যে ৩০ জুলাই কে রসগোল্লা দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে।

ছানা পোড়া

Chhena Poda

ছানা পোড়া ছানা, চিনি, কাজু, এলাচ আর কিসমিস সহযোগে তৈরি একটি অত্যন্ত উপাদেয় এবং জনপ্রিয় মিষ্টি। শাল গাছের পাতা এ সমস্ত উপাদান মুড়ে সেটি কাঠকয়লার উননে ভাপানর পরে তৈরি হয় এই জিভে জল আনা মিষ্টি। প্রাচীন কথা অনুযায়ী বিংশ শতাব্দীর প্রথম ভাগে নয়াগড় জেলাতে প্রথম তৈরি হয় ছানা পোড়া। সারা বছর ধরে এই মিষ্টি সকলের রসনার তৃপ্তি করে আসলেও, দুর্গা পুজার সময় এই মিষ্টির জনপ্রিয়তা হয় আকাশ ছোঁয়া।

ছানার গজা

Chhena Gaja

বাঙ্গালীদের কাছে পুরীর অন্য নাম হল ছানার গজা। ছানা, চিনি আর সুজির সমন্বয়ে চারকোনা এই মিষ্টি কে আর সুমিষ্ট করে তোলে চিনির রসের প্রলেপ। ছানার গজা প্রধানত দু ধরনের হয়ে থাকেন; সেদ্ধ শুকনো গজা এবং ভাজা রসে ভেজান গজা।

ছানা ঝিল্লি

Chhena Jhilli

এই বিশেষ ধরনের মিষ্টি ছানা, এলাচ গুঁড়ো, ঘী আর চিনির রস সহযোগে তৈরি হয়। সমস্ত উপাদান ভাল করে মেখে ছাকা তেলে ভেজে রস এ ডুবিয়ে তৈরি হয় ছানার ঝিল্লি। পুরী জেলা এ অবস্থিত নিমাপারা গ্রাম ছানার ঝিল্লির জন্য বিখ্যাত। ভুবনেশ্বর থেকে পুরী যাওয়ার পথে নিমাপারা এ রাস্তার ধারে প্রচুর দোকান পরবে যেখান থেকে আপনি বিভিন্ন রকমের ছানা ঝিল্লি কিনতে পারেন।

রাসাবালি

Rasabali

উড়িষ্যার কেন্দ্রাপারা রাসাবালির জন্য ভারত বিখ্যাত। লালচে বাদামি রঙের ছাঁকা তেলে ভেজে দুধের রাবড়িতে ডোবানো ছানার এই মিষ্টি দেখে লোভ সম্বরণ করা সত্যি অসম্ভব। রাসাবালি এত ই নরম হয় যে তা মুখে দেওয়ার এক মুহূর্তের মধ্যে মিলিয়ে যায়। কেন্দ্রাপারাএ বৈষ্ণবী পাণ্ডার দোকান রাসাবালির জন্য সব থেকে বিখ্যাত।

উড়িষ্যার বিখ্যাত কিছু মিষ্টির দোকানঃ

১. পাহালা মিষ্টান্ন ভাণ্ডার (বিজু পাত্তানায়েক এয়ারপোর্ট থেকে ১৪ কিমি. দূরে)

২. নিমাপারা মিষ্টান্ন ভাণ্ডার (ভুবনেশ্বর থেকে ৪০ কিমি)

৩. বিকালানাদাকারা মিষ্টান্ন ভাণ্ডার (সাহেব নগর, ভুবনেশ্বর)

৪. দামামাহারাজ মিষ্টান্ন ভাণ্ডার (ণায়াপালী,ভুবনেশ্বর এবং লিংক রোড, কটক)

৫. ভাগাণ সাহুর দোকান (কণিকা চওক, কটক)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here