Insights into simplifying train travel

5টি গুপ্ত রত্ন ভালুকপং – তাওয়াং পথ বরাবর

অরুণাচল প্রদেশ মহৎ হিমালয়, বন ও নদী দ্বারা রত্নখচিত। তাওয়াং, জিরো উপত্যকা ও ইটানগরের মত অরুণাচলের কিছু গন্তব্যস্থল সেগুলির অনুপম সৌন্দর্যের জন্য পর্যটকদের মনোযোগ অর্জন করেছে। এখানে ভালুকপং – তাওয়াং পথ বরাবর পাঁচটি সম্মোহিত করা জায়গা সম্পর্কে দেওয়া হল।

টেঙ্গা উপত্যকা

Tenga Valley
টেঙ্গা উপত্যকায় একজন মানুষ ট্রেকিং, নদী পারাপার ও নদীতে নৌকা ভাসানোর মত বিভিন্ন আউটডোর কার্যকলাপ উপভোগ করতে পারেন। কেনাকাটা করতে ভালোবাসা মানুষদের জন্য, টেঙ্গা বাজার সবচেয়ে ভাল জায়গা যেখানে বাকু (তিব্বতি পোষাক), পাথরের গয়না এবং অন্যান্য ঐতিহ্যবাহী নিদর্শন কিনতে পারবে। এবং সেইসঙ্গে নাগ মন্দির দর্শন করা মিস করবেন না।

বোমডিলা এবং দিরাং উপত্যকা

Bomdila Monastery
বোমডিলা প্রায় 6500 মানুষের একটি জনবহুল জনপদ যেটি সমুদ্রতল থেকে প্রায় 7000 ফুট উপরে অবস্থিত। একজন মানুষ বৌদ্ধ মঠ দেখতে যেতে বা আপেলের বাগানে মধ্যে দিয়ে জঙ্গল ট্রেকের জন্য যেতে পারেন।

Dirang Valley

দিরাং বোমডিলা থেকে 2 ঘন্টা দূরে অবস্থিত। যেখানে নদীর পাশে কৃষি জমির সঙ্গে সমতল ভূমি আপনাকে নিশ্চয় সম্মোহিত করবে। বোমডিলা এবং দিরাং উভয় জায়গাতেই কেনাকাটা করার জন্য ভাল বাজার আছে। এখানে থাকার সময় দিরাং উষ্ণ প্রস্রবণটি দর্শন করবেন।

সেলা পাস

Jaswant-Garh

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

সেলা পাস প্রাচীন কালে ভারত ও চীনের মধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ বানিজ্য পথ ছিল। এই পাসে খুব কমই সূর্যালোক দেখতে পাওয়া যায় এবং তাপমাত্রা এখানে সব থেকে কম – 100C হয়। চিত্রোপম সেলা হ্রদ ও গুম্ফা মিস করা উচিত নয়।

যশোবন্ত গড়

Sela Lake
মাননীয় ক্যাপ্টেন যশোবন্ত সিংয়ের মাজার প্রতিটি ভারতীয়দের জন্য আবশ্যই দেখার জায়গা। মাজারটি তৈরি হয়েছে সেই জায়গায় যেখানে যশোবন্ত সিং, একজন ভারতীয় সেনাবাহিনীর রাঁধুনি 1962 যুদ্ধের সময় সফলভাবে চীনা সেনাবাহিনীকে থামানোর জন্য পরে চীনারা তাঁকে ফাঁসি দেয়। সবাই ভারতীয় সেনাবাহিনীর দ্বারা পরিচালিত ছোট যাদুঘরটি দেখতে যেতে পারেন এবং সকলের জন্য বিনামূল্যে গরম চায়ের সাথে সিঙ্গাড়া উপভোগ করতে পারে!

জং

Jung Town
এই ছোট্ট জনপদটি 8,000 ফুট উচ্চতায় অবস্থিত। পর্যটকরা জং জলপ্রপাত, স্থানীয় মঠ এবং বাজার (চীনা জিনিস বিক্রি হয়) দেখতে পারেন। জং রেস্তোরাঁগুলিতে সুস্বাদু মোমো পরিবেশন করা হয়।

ভ্রমণের টিপস

  • দিল্লি, গুয়াহাটি বা তেজপুরের রাজ্য অফিস থেকে ইনার লাইন পারমিট নিয়ে যান।
  • স্থানীয় বাজারে খোলা মনে দর কষাকষি করুন।
  • মদের উপর কর ছাড় দেওয়া হয়, তাই বিভিন্ন ধরণের মদ ও হার্ড ড্রিঙ্কস আস্বাদন করে দেখুন।
  • নিকটতম রেলওয়ে স্টেশন: রাঙ্গাপাড়া (ভালুকপং থেকে 46 কিলোমিটার দূরে)

Leave a Comment

Required fields are marked *